1. me@dailyjagrotodesh.com : দৈনিক জাগ্রতদেশ : dailyjagrotodesh.com dailyjagrotodesh.com
  2. dailyjagrotodesh@gmail.com : দৈনিক জাগ্রতদেশ :
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১০:১১ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
দুমকিতে ঈদ উল আযহা ঘনিয়ে আসায় জমতে,শুরু করেছে পশুর হাট বাড়ছে ক্রেতা সমাগম। ঈদের দিন ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে জমতে শুরু করেছে পশুর হাট বাড়ছে ক্রেতা সমাগম জগন্নাথপুর সরকারী বালিকা বিদ্যালয়ের পুরাতন মালামাল গোপনে বিক্রি, প্রশাসনের হস্তক্ষেপ  বজ্রপাত আতঙ্কে গ্রামীন জনজীবনে ঝুকি উপজেলা পরিষদ নির্বাচন দুমকিতে কাওসার, আমিন হাওলাদার কাপ পিরিচ’র বিজয়,, অবাধ, সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন। দুমকিতে মুজিব বর্ষের ঘর পেলো,ভূমিহীন-গৃহহীন ৩০ পরিবার। রাজশাহীর কাঁকন হাট পৌর সভায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচন পরবর্তী আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত পটুয়াখালী সদর উপজেলা নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সর্বোচ্চ ভোটে বিজয়ী হয়েছেন কামরুননাহার শিমুল।  পটুয়াখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নির্বাচিত হলেন নতুন তিন মুখ। চরভদ্রাসনে ঈদকে সামনে রেখে গরু-ছাগল লালন-পালনে ব্যস্ত সময় পার করছেন খামারিরা
বিঙ্গাপন:
তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য সুখবর, সারাদেশে ডিলার নিয়োগ দিচ্ছে মিয়া কেমিক্যাল কোম্পানি!!! সারাদেশের প্রতিটি জেলা উপজেলায় শূন্যস্থানে সংবাদ প্রতিনিধি সাংবাদিক নিয়োগ চলছে আগ্রহীরা পোস্টের নাম উল্লেখ করে সিভি পাঠান dailyjagrotodesh@gmail.com

ভিসানীতি-নিষেধাজ্ঞার ভয় দেখিয়ে লাভ নেই, উজান ঠেলে নৌকা এগিয়ে যাবে: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • প্রকাশিত: শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দৃঢ়ভাবে বলেছেন, জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে আন্দোলন, ভিসা নীতি, নিষেধাজ্ঞা বা বিদেশিদের ভয় দেখিয়ে কোনো লাভ নেই। তিনি বলেন, নৌকা সারাজীবন উজানে ঠেলেছে। উজানে ঠেলে এগিয়ে যাবে।

শেখ হাসিনা বলেন, আন্দোলনের কথা অনেকেই বলেন। আবার ভিসা নীতি বা নিষেধাজ্ঞার ভয়। আমার সাফ কথা, দেশ আমাদের, আমরা দেশ স্বাধীন করেছি। আমাদের এই ভয় দেখিয়ে কোন লাভ নেই।

শনিবার (২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে পুরাতন বাণিজ্য মেলা মাঠে ঢাকার প্রথম এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে উদ্বোধন শেষে সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে আজ এত উন্নয়ন হয়েছে কেন? দেশে গণতান্ত্রিক স্থিতিশীলতা আছে বলেই এটা হয়েছে। অনেকেই বলছেন, এখন গণতন্ত্র রক্ষা হবে। আমরা জানি তারা কী গণতন্ত্র দিয়েছে। এখন অনেকেই আন্দোলনের কথা বলেন। ভিসা নীতি এবং নিষেধাজ্ঞার ভয়। আমাদের এই ভয় দেখিয়ে কোন লাভ নেই।

তিনি বলেন, আজ যারা আন্দোলনের নামে প্রতিদিন আমাদের ক্ষমতা থেকে ছুড়ে দিচ্ছে, তাদের বলব- মেঘ ভয় পায়, সূর্য তাদের পেছনে হাসে। ভয়কে জয় করে বাংলাদেশের মানুষ উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাবে। নৌকা সারাজীবন উজানে ঠেলেছে। উজানে ঠেলে এগিয়ে যাবে।

সরকারপ্রধান আরো বলেন, নৌকা ব্র্যান্ড ডিজিটাল বাংলাদেশ দিয়েছে। এই নৌকা দেবে স্মার্ট বাংলাদেশ। আত্মবিশ্বাসের সাথে জনগণের কল্যাণে কাজ করলে তাদের ভাগ্যের পরিবর্তন সম্ভব। আমরা এটা দেখেছি। তবে এর স্থিতিশীলতা দরকার।

 

শেখ হাসিনা বলেন, ২০০১ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত দেশ অন্ধকারে ছিল, এখন আর নেই। আলোর পথে যাত্রা শুরু করেছে বাংলাদেশ। আমরা একের পর এক প্রতিশ্রুতি পূরণ করছি। কবি সুকান্তের ভাষায়- ‘এই পৃথিবীকে এই শিশুর বাসযোগ্য করে দেব, নবজাতকের কাছে এটাই আমার দৃঢ় প্রতিজ্ঞা।’

তিনি বলেন, ইউক্রেনে যুদ্ধের ফলে আজ একটি সাময়িক সমস্যা চলছে। অর্থনৈতিক ধাক্কা আমাদের উপর। তাই বলেছি, দেশে কোনো অনাবাদি জমি থাকবে না। নিজের ফসল ফলান। নিজের খাবার নিজেই খাব। কাউকে স্পর্শ করব না। জাতির পিতা বলতেন, ভিক্ষুকের জাতির উন্নতি হয় না।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, পদ্মা সেতু নির্মাণ করে বিশ্বকে দেখিয়েছি বাংলাদেশকে নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে না। মেট্রোরেল, উদল সড়ক উদ্বোধন করেছি। এসবই জনগণের স্বার্থে। সারাদেশে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করেছি। আমরা চাই আমাদের দেশ এগিয়ে যাক।

তিনি বলেন, জাতির জনকের এই স্বাধীন দেশের একজন মানুষও গৃহহীন ও ভূমিহীন থাকবে না। আমি তাদের ঘর তৈরি করছি। কর্মসংস্থান ব্যাংকের মাধ্যমে ঋণ দিয়ে বেকারদের চাকরির সুযোগ করে দিচ্ছি। আমরা সরকারি কর্মচারীদের মতো সবার জন্য সার্বজনীন পেনশন চালু করেছি। শুধু বর্তমান নয়, ভবিষ্যতেও আমরা সেই উদ্যোগ নিচ্ছি।

দেশের প্রথম এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে উদ্বোধন প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, আজ আপনাদের আরেকটি নতুন উপহার দিচ্ছি। ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে। এই ফ্লাইওভার সড়কটি ঢাকা শহরের যানজট নিরসনে বিশেষ ভূমিকা রাখবে। সময় বাঁচাতে. মানুষের জন্য কাজের সুযোগ তৈরি হবে। মানুষের দীর্ঘদিনের ইচ্ছা পূরণ হবে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন, তাদের নান্দনিক গ্রাম দেওয়া হয়েছে।

সমাবেশে প্রধানমন্ত্রীর ছোট বোন শেখ রেহানা, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, ঢাকা উত্তর সিটি মেয়র আতিকুল ইসলাম, দক্ষিণের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস, সড়ক ও সেতু মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি রওশন আরা মান্নান, সংসদ সদস্য হাবিব হাবিব প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। সভাপতিত্বে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। হাসান ও মোহাম্মদ আলী আরাফাত প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সেতু সচিব মঞ্জুর হোসেন।

এর আগে বিকেল সাড়ে ৩টায় বিমানবন্দরের কাওলা অংশে নামের ফলক উন্মোচনের মাধ্যমে দেশের প্রথম ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। পরে তিনি প্রকল্প সম্পর্কে সচিবের দেওয়া প্রেজেন্টেশন দেখেন এবং ব্রিফ শোনেন। তারপর কাওলা প্রান্ত থেকে টোল নিন এবং এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েতে উঠুন। 14 মিনিটে প্রায় 11 কিলোমিটার এক্সপ্রেসওয়ে অতিক্রম করে তিনি আগারগাঁওয়ে সুধী সমাবেশে পৌঁছান। শেখ হাসিনা সেখানে স্থাপিত উদ্বোধনী ফলক উন্মোচন করেন এবং পরে দোয়া ও মোনাজাতে অংশ নেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক জাগ্রতদেশ ২০২৩-২০২৪
Theme Customized By BreakingNews