1. me@dailyjagrotodesh.com : দৈনিক জাগ্রতদেশ : dailyjagrotodesh.com dailyjagrotodesh.com
  2. dailyjagrotodesh@gmail.com : দৈনিক জাগ্রতদেশ :
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১০:১৫ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
দুমকিতে ঈদ উল আযহা ঘনিয়ে আসায় জমতে,শুরু করেছে পশুর হাট বাড়ছে ক্রেতা সমাগম। ঈদের দিন ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে জমতে শুরু করেছে পশুর হাট বাড়ছে ক্রেতা সমাগম জগন্নাথপুর সরকারী বালিকা বিদ্যালয়ের পুরাতন মালামাল গোপনে বিক্রি, প্রশাসনের হস্তক্ষেপ  বজ্রপাত আতঙ্কে গ্রামীন জনজীবনে ঝুকি উপজেলা পরিষদ নির্বাচন দুমকিতে কাওসার, আমিন হাওলাদার কাপ পিরিচ’র বিজয়,, অবাধ, সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন। দুমকিতে মুজিব বর্ষের ঘর পেলো,ভূমিহীন-গৃহহীন ৩০ পরিবার। রাজশাহীর কাঁকন হাট পৌর সভায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচন পরবর্তী আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত পটুয়াখালী সদর উপজেলা নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সর্বোচ্চ ভোটে বিজয়ী হয়েছেন কামরুননাহার শিমুল।  পটুয়াখালী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে নির্বাচিত হলেন নতুন তিন মুখ। চরভদ্রাসনে ঈদকে সামনে রেখে গরু-ছাগল লালন-পালনে ব্যস্ত সময় পার করছেন খামারিরা
বিঙ্গাপন:
তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য সুখবর, সারাদেশে ডিলার নিয়োগ দিচ্ছে মিয়া কেমিক্যাল কোম্পানি!!! সারাদেশের প্রতিটি জেলা উপজেলায় শূন্যস্থানে সংবাদ প্রতিনিধি সাংবাদিক নিয়োগ চলছে আগ্রহীরা পোস্টের নাম উল্লেখ করে সিভি পাঠান dailyjagrotodesh@gmail.com

সিরাজগঞ্জে সাত দিনে ৪২ কর্মসূচীতে অংশ নিয়ে রেকর্ড গড়লেন এমপি মিল্লাত

  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ১৭ আগস্ট, ২০২৩

মোঃ মাহবু বুর রহমান,সিরাজগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ

সাতদিনে নিজ নির্বাচনি এলাকার ৪২টি কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করে রেকর্ড গড়লেন সিরাজগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ডা. হাবিবে মিল্লাত মুন্না। এর মধ্যে ১৫ আগস্ট একদিনে সর্বোচ্চ ১০টি কর্মসূচিতে অংশ নেন তিনি।

গত ৯ আগস্ট থেকে ১৫ আগস্ট রাত ১০টা পর্যন্ত তিনি সরকারি-বেসরকারি, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের অনুষ্ঠানে যোগদান, দলীয় কর্মসূচি ও বিভিন্ন মতবিনিময় সভায় অংশগ্রহণ করেন। এছাড়াও নির্বাচনি এলাকার উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তদারকি, উঠোন বৈঠক ও জাতীয় শোক দিবসের একাধিক অনুষ্ঠানেও অংশগ্রহণ করেন।

৯ আগস্ট সকাল সাড়ে ৮টায় কামারখন্দ উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে জমিসহ ঘর প্রদান অনুষ্ঠানে যোগদানের মধ্য দিয়ে তার ৭ দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। ওইদিন তিনি আরও ৫টি কর্মসূচিতে অংশ নেন। পরদিন ১০ আগস্ট ৭টি, ১১ আগস্ট ৫টি, ১২ আগস্ট ৬টি, ১৩ আগস্ট ৬টি, ১৪ আগস্ট ৪টি এবং ১৫ আগস্ট সর্বোচ্চ ১০টি কর্মসূচিতে অংশ নেন। ১৫ আগস্ট রাতে জেলা প্রশাসন আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠান শেষে নির্বাচনি এলাকা ত্যাগ করেন তিনি। এছাড়াও নির্ধারিত কর্মসূচির বাইরে আরও কয়েকটি কর্মসূচিতেও অংশ নেন তিনি।

 

শিয়ালকোল ইউনিয়নের ইউপি সদস্য সজল বলেন, গত ১০ বছরে শিয়ালকোলে ৫৪ বার এসেছেন এমপি মিল্লাত মুন্না। আগে কোন এমপি এটা করতে পারেননি।

 

খোকশাবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান রাশিদুল হাসান মোল্লা বলেন, এমপি মুন্না প্রতিটি কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে তৃণমূলের মানুষের সুখ-দু:খের কথা শোনেন। এলাকার উন্নয়নের তদারকি করেন। যে কোনো প্রোগ্রামে ডাকলেই তাকে পাওয়া যায়।

 

কামারখন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন শেখ বলেন, এমপি হাবিবে মিল্লাত কামারখন্দের ৪টি ইউনিয়নের প্রতিটি গ্রাম ও পাড়া মহল্লায় গিয়েছেন। ছেলে-বুড়ো থেকে শুরু করে গৃহবধূরাও তাঁকে চেনেন। গত সপ্তাহে ৮টি প্রোগ্রাম করেছেন তিনি।

 

সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম সজল বলেন, ডা. হাবিবে মিল্লাত এমপি হওয়ার পর থেকে নিজের পেশা ছেড়ে এলাকার মানুষের কাজ করছেন। তিনি কঠোর পরিশ্রমী একজন মানুষ। কখনো তা্কে ক্লান্ত হতে দেখা যায় না। একটির পর একটি কর্মসূচিতে অংশ নেন তিনি। প্রোগ্রাম থাকলে নাওয়া-খাওয়ার কথাও ভুলে যান।

 

সিরাজগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি হেলাল উদ্দিন বলেন, ২০০৯ সাল থেকে ডা. হাবিবে মিল্লাত মুন্না সামাজিক ও মানবিক কাজ করে আসছেন। ২০১১ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিরাজগঞ্জের জনসভায় তাকে উন্নয়ন সমন্বয়কের দায়িত্ব দেন। এরপর থেকেই তিনি বিরামহীনভাবে কাজ করছেন।

তিনি আরও বলেন, ২০১৪ সালে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে এলাকার মানুষের পাশে থেকে নিরলসভাবে কাজ করে আসছেন। নির্বাচনি এলাকায় এসে প্রতিদিনই গড়ে ৫/৬টি করে প্রোগ্রাম করেন। জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক থাকতে তিনি দলের ১১৬টি ইউনিটের নেতা নির্বাচন করেন ভোটের মাধ্যমে। যেটা এর আগে কখনো হয়নি।

তার দাবি, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে তিনি গ্রামের পর গ্রাম ছুটে বেড়াচ্ছেন। উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তদারকি করছেন। সৎ ও পরিশ্রমী নেতা হাবিবে মিল্লাত মুন্না। জামায়াত-বিএনপি একমাত্র তাঁকেই ভয় পায়।

 

এ বিষয়ে ডা. হাবিবে মিল্লাত মুন্না বলেন, পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচির তালিকার বাইরেও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তিনি অংশগ্রহণ করেন। সব মিলিয়ে এ সপ্তাহে ৪২টি কর্মসূচি হয়েছে। ২০১৪ সালে এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে সপ্তাহে ৩/৪ দিন করে নির্বাচনি এলাকায় সময় দিয়ে আসছেন। এখন প্রতিদিন গড়ে ৫/৬টি করে প্রোগ্রামে অংশ নেন তিনি।

এসব কর্মসূচির মাধ্যমে তিনি মানুষের দোড়গোড়ায় পৌঁছে যেতে পেরেছেন বলে তার ধারণা। মানুষের সু:খ-দু:খের কথা শুনে সে অনুযায়ী তিনি কাজ করার চেষ্টা করেন। জঙ্গিবাদ, মাদক, সন্ত্রাস, সহিংসতা প্রতিরোধে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষকে উদ্বুদ্ধকরণের কাজও তিনি করছেন। নির্বাচনি এলাকায় এসে প্রতিনিয়ত উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের তদারকিও তিনি করেন বলে তিনি জানান।

তাঁর দাবি, তার নির্বাচনি এলাকায় স্বাধীনতার ৫২ বছরের মধ্যে গত ১০ বছরেই ৬৬ শতাংশ উন্নয়ন হয়েছে বলে একটি বেসরকারি সংস্থার জরিপে উঠে এসেছে। যেটা চ্যানেল নাইনে প্রতিবেদন প্রচার হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, গত ১০ বছরে তার নির্বাচনি এলাকায় এমন কোনো গ্রাম নেই যে গ্রামে একাধিকবার তিনি যাইনি। এ কারণে এলাকার মানুষের সাথে তাঁর একটি আত্মিক সম্পর্ক গড়ে উঠেছে।

 

 

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক জাগ্রতদেশ ২০২৩-২০২৪
Theme Customized By BreakingNews